Darul Ihsan Madrasah

আমাদের কথা

كنتم خير امة اخرجت للناس تأمرون بالمعروف وتنهون عن المنكر
“তোমরাই সর্বোত্তম জাতি, তোমাদেরকে মানবতার কল্যাণে সৃষ্টি করা হয়েছে। তোমরা সৎ কাজের আদেশ করবে, অসৎ কাজে নিষেধ করবে’। সুরা আল-ইমরান-১১০)”


সুশিক্ষাই জাতির উন্নতি ও কল্যাণের অন্যতম চাবিকাঠি। একমাত্র কোরআন ও সুন্নাহর জ্ঞানের সাথে আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞানের সমন্বয় সাধন করে কোমলমতি সন্তানের সুশিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব। সাধারণ শিক্ষা ব্যবস্থায় ধর্মীয় শিক্ষার অবহেলার কারণে নৈতিক মানসম্পন্ন যোগ্য নাগরিক তৈরী করা প্রায় অসম্ভব । অন্যদিকে গতানুগতিক মাদ্‌রাসা শিক্ষা ব্যবস্থায় যথার্থ সংস্কারের অভাবে জ্ঞান আহরণের তীব্র আকাংখায় ছুটে আসা ছাত্র-ছাত্রীরা প্রকৃত শিক্ষার আলো থেকে হচ্ছে বঞ্চিত। তাই মাদ্‌রাসা শিক্ষা ব্যবস্থাকে গতানুগতিক ধারা থেকে মুক্ত করে একবিংশ শতাব্দীর জ্ঞান-বিজ্ঞানে ও উন্নত জাতি গঠনে অবদান রাখতে সক্ষম যোগ্য আলেমে দ্বীন ও সুনাগরিক তৈরীর প্রত্যয়ে মহান আল্লাহ তা’লার অশেষ মেহেরবাণীতে আপনাদের সুপরিচিত ‘বসুরহাট দারুল ইহসান মাদরাসা’ (সাবেক বসুরহাট ক্যাডেট মাদরাসা) ২০০৪ সালে যাত্রা শুরু করে অদ্যাবধি অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে ইসলাম ও আধুনিক শিক্ষার অপূর্ব সমন্বয় সাধন করে আপনাদের কোমলমতি সন্তানদেরকে শিক্ষাদান করে আসছে। ইতিমধ্যে দাখিল, জেডিসি, ইবতেদায়ি সমাপনি ও বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে সর্বাধিক বৃত্তি, গোল্ডেন A+ ও A+ সহ ১০০% সাফলতা অর্জন করেছে। আমরা এই ধারাকে আরো বেগবান করার লক্ষ্যে বিভিন্ন যুগোপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি।

আপনি আপনার সন্তানের উন্নত ভবিষ্যৎ গঠনের লক্ষ্যে আমাদের এই অগ্রযাত্রায় অংশিদার হওয়ার আহবান জানাচ্ছি ।

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষার্থীদেরকে আল্লাহ ও তাঁর রাসূল (স:)-এর অনুগত বান্দা হিসাবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রকৃত ইসলামী ও আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞানের সমন্বয়ে বিজাতীয় সভ্যতা এবং সংস্কৃতির প্রভাবমুক্ত যোগ্য আলেমেদ্বীন হিসাবে গড়ে তোলা। এ লক্ষ্যে আবশ্যকীয় বিষয় ও ভাষাসমূহ শিক্ষাদানের মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি ও আখেরাতের মুক্তি অর্জনই হচ্ছে এ মাদরাসার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য।

বিভাগ পরিচিতি

বিভাগ পরিচিতি
বর্তমানে মাদরাসায় নিম্নোক্ত বিভাগ সমূহ চালু আছে

১। রাওদাতুল আতফাল (শিশু বিভাগ): শিক্ষাকাল ২ বৎসর ।
শ্রেণী বিন্যাস : প্লে গ্রুপ ও নার্সারি ।
ভর্তির যোগ্যতা : প্লে গ্রুপের বয়স ৪ বৎসর। নার্সারিতে বয়স ৫ বৎসর পূর্ণ হওয়া এবং বাংলা, ইংরেজি ও আরবি বর্ণমালা পড়তে ও লিখতে পারা।

২। আল মারহালাতুল ইবতেদায়ীয়া (প্রাথমিক বিভাগ) : শিক্ষাকাল – ৫ বৎসর ।

শ্রেণী বিন্যাস: ইবতেদায়ি ১ম শ্রেণি থেকে ৫ম শ্রেণি ।

ভর্তির যোগ্যতা: ৬ বৎসর বয়স থেকে ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে শ্রেণি উপযোগি হিসাবে ভর্তি করানো হয় । স্কুল থেকে আগত ছাত্র-ছাত্রীদেরকে বিশেষ তত্ত্বাবধানে অত্র বিভাগে পাঠদান করানো হয় ।

শিক্ষার মান : ৫ম শ্রেণী পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি বৃত্তি / সমাপনী পরীক্ষাসহ স্কুল ও মাদ্রাসার যে কোন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় অংশগ্রহণে সক্ষম করে তোলা এবং সহীহ কোরআন তেলাওয়াত, মৌলিক দোয়া ও মাসায়েল শিক্ষা দেওয়া হয়।

৩ । আল মারহালাতুল এদাদিয়্যা (নিম্ন মাধ্যমিক বিভাগ) : 

শিক্ষাকাল- ৩ বৎসর । শ্রেণী বিন্যাস : দাখিল ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে ৮ম শ্রেণি ।
ভর্তির যোগ্যতা: ইবতেদায়ী ৫ম শ্রেণি পাশ করা ও ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া ।
শিক্ষার মান: নাহু-ছরফের মৌলিক জ্ঞানসহ আরবী ও ইংরেজীতে পঠন ও লিখনে পারদর্শী করে গড়ে তোলা এবং ৮ম শ্রেণীর সরকারি বৃত্তি / সমাপনি পরীক্ষায় পূর্ণ কৃতিত্বের জন্য প্রস্তুত করা হয় ।

৪। আল-মারহালাতুল মুতাওসসিতা (মাধ্যমিক বিভাগ): শিক্ষাকাল- ২ বৎসর । 

শ্রেণি বিন্যাস: দাখিল ৯ম ও ১০ম শ্রেণি
ভর্তির যোগ্যতা: দাখিল ৮ম শ্রেণি পাশ ও ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া ।

৫। তাহফিজুল কোরআন (হিফয বিভাগ) : শিক্ষাকাল – মেধানুসারে ৩-৪ বৎসর।

ভর্তির যোগ্যতা : বয়স ৮ বৎসর, কোরআন দেখে দেখে পড়তে পারা ।

শিক্ষার মান : বিশুদ্ধ নাজেরা পাঠসহ পবিত্র কোরআন শরীফ মুখস্থ করার পাশাপাশি বাংলা, অংক, ইংরেজী ও আরবী বিষয়ে বিশেষ সিলেবাসের আলোকে পর্যায়ক্রমে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত পাঠদান ।

৬। আদর্শ নুরানী বিভাগ ঃ অত্র প্রতিষ্ঠানে বয়েজ ও গার্লস শাখার নুরাণি বিভাগ ছাড়া ও হিফজ নুরাণী বিভাগ.১ম থেকে ৩য় শ্রেণী পর্যন্ত সম্পুর্ন নুরাণী কারিকুলাম অনুস্বরণ করে পাঠদান করা হয়।

 

৭। কম্পিউটার শিক্ষা বিভাগ : কোরআন ও হাদিসের মৌলিক শিক্ষার সাথে সাথে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞানের সাথে পরিচিত করানোর জন্য কম্পিউটার শিক্ষা আমাদের সিলেবাসের অন্যতম বৈশিষ্ট্য । এতে ১ম শ্রেণী থেকে সকল শ্রেণিতে কম্পিউটার শিক্ষার মৌলিক বিষয়াবলী গুরুত্ব সহকারে শিখানো হয় ।

 

৮। শিক্ষক প্রশিক্ষণ ও ভাষা শিক্ষা বিভাগ : ছাত্র-ছাত্রীদেরকে বিজ্ঞান সম্মত পাঠদানের লক্ষ্যে কর্মরত শিক্ষক অথবা শিক্ষকতায় আগ্রহী প্রার্থীদেরকে বিষয় ভিত্তিক প্রশিক্ষন দেওয়া হয় এবং ছাত্র- ছাত্রীদেরকে আরবী, ইংরেজী ভাষায় কথোপকথোনে পারদর্শী করার লক্ষ্যে “ল্যাংগুয়েজ ক্লাব” প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে ।